কিডনির অসুখ থেকে মুক্ত থাকার উপায়

বিডিমেট্রোনিউজ ডেস্ক ॥ কিডনির সমস্যাও দেখা দিতে পারে যখন–তখন৷ কাজেই খাওয়া–দাওয়া থেকে শুরু করে দৈনন্দিন খুঁটিনাটি ব্যাপারের দিকে নজর দিন৷। শরীরের প্রয়োজন অনুযায়ী পানি খাওয়া বা স্বাস্থ্যকর খাবার ডায়েটে রাখার কথা আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু জানি না এমন কিছুও, যার জেরে শরীরে বাসা বাঁধতে পারে কিডনির নানা সমস্যা।

খাওয়ার নিয়ম

  • ওজন কমানোর নেশায় কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার খাওয়া বন্ধ করে দেবেন না৷ খাবারের মোট ক্যালোরির ৬০–৬৫ শতাংশ যেন কার্বোহাইড্রেট থেকে আসে৷ সারা দিনে ছোট এক বাটি ভাত, ৩–৪টে রুটি বা চিড়ে–মুড়ি–খই এবং দু’–তিন রকম শাকসব্জি–ফল খান৷
  • এখন যতটা নুন খান তার চেয়ে ২ গ্রাম কম খান৷ দিনে এক চা–চামচের বেশি নয়৷ খাবার বানান কম নুনে৷ প্রক্রিয়াজাত খাবার কম খান৷  কিডনির রোগের আশঙ্কা প্রায় ২০ শতাংশ কমবে৷
  • বয়স ৪০–এর কাছে এলে ওজনের ১০ শতাংশ–র বেশি প্রোটিন খাওয়া ঠিক নয়৷ অর্থাৎ ওজন ৬০ কেজি হলে প্রোটিন খাবেন ৬০ গ্রামের মতো৷ তার জন্য কী খেতে হবে দেখুন৷

১০০ গ্রাম মাছ–মাংস–ডালে ২০ গ্রামের মতো প্রোটিন থাকে৷ ৫০ গ্রাম ওজনের ডিমে থাকে ৬–৬.৫ গ্রাম৷ ১০০ মিলি দই বা দুধে ৪ গ্রাম৷ অর্থাৎ সকালে ডিম বা দুধ/দই/ছানা/চিজ খেতে পারেন৷ ডাল না খেলে দুপুরে ৫০ গ্রামের দু–টুকরো মাছ বা মাংস আর ডাল–পনির বা দই খেলে এক টুকরো খান৷ রাতেও একই নিয়ম৷ সকালে অল্প ছোলা বা মুগ ভেজানো খেতে পারেন৷ বিকেলেও ছোলা–বাদাম চলতে পারে৷ হ্যাম, সসেজ, বেকন, রাজমা, সয়াবিন, টোফু সবই প্রোটিন৷ কাজেই একটা খেতে গেলে আরেকটা একটু কমিয়ে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে৷

  • জাঙ্ক ফুড না খাওয়াই ভাল৷ নিতান্ত খেতে হলে সপ্তাহে এক–আধ দিনের বেশি নয়৷ কারণ এতে বেশি প্রোটিন, ফ্যাট, প্রিজারভেটিভ ও নুন থাকে, যার প্রতিটিই কিডনির জন্য ক্ষতিকারক৷
  • ওজন বাড়তে দেবেন না৷ যত বেশি ওজন তত কিডনির ক্ষতি৷ ৬০ কেজি ওজনের একজন মানুষের তুলনায় ১২০ কেজি ওজনের মানুষের কিডনি খারাপ হওয়ার আশঙ্কা দ্বিগুণ৷
  • কিডনি ভাল থাকে পরিমাণ মতো জল খেলে৷ কী ধরনের কাজ করেন, শরীরের অবস্থা ইত্যাদির উপর নির্ভর করে দিনে আড়াই–তিন লিটার থেকে ৪ লিটার জল খান৷ এর কম খেলে কিডনিতে পাথর হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে, বেশি খেলে অতিরিক্ত খাটুনি পড়ে কিডনির উপর৷

ব্যায়াম ও অন্যান্য নিয়ম

মডেলিং বা অভিনয় জগতে না থাকলে দিনে ৩০–৪৫ মিনিট জোর কদমে হাঁটা, সাঁতার বা সাইকেল চালানোই যথেষ্ট৷ সঙ্গে ১৫–২০ মিনিট ওজন নিয়ে ব্যায়াম৷ খেলাধুলা করতে পারলে আরও ভাল৷ এতে শরীর–মন দুই–ই ভাল থাকে৷ সঙ্গে মিনিট ২০ যোগা করুন৷

তবে শরীরের অবস্থা যাচাই না করে বেশি ওজন নিয়ে ব্যায়াম করলে, পেশি ফোলালে রক্তচাপ বেড়ে কিডনির ক্ষতি হতে পারে৷ কাজেই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ ছাড়া বেশি কসরত করবেন না৷

বয়স বাড়লে ওষুধের ব্যাপারে সতর্ক হোন৷ কিছু ওষুধ আছে যা থেকে কিডনি খারাপ হতে পারে৷ যেমন, নন–স্টেরয়ডাল অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি গ্রুপের ব্যথার ওষুধ, অ্যাঞ্জিওগ্রাফি–আইভিপি বা সিটি স্ক্যানে ব্যবহৃত রঞ্জক, কিছু অ্যান্টিবায়োটিক, মৃগি বা টিবির ওষুধ, স্টেরয়েড ইত্যাদি৷ প্যারাসিটামল তুলনায় নিরাপদ৷ তবে নিয়মিত খেলে ক্ষতি হতে পারে৷ অ্যাম্ফিটামিন, হেরোইন, কোকেন, গাঁজা, ভাং, এমনকী দীর্ঘ দিন ধরে প্রচুর মদ খেলেও বিপদ হতে পারে৷ আবার দেশি মদে, যেখানে মিথাইল অ্যালকোহল ভেজাল মেশানো হয়, তা খেলে সঙ্গে সঙ্গে কিডনি বিকল হয়ে যেতে পারে৷ বিপদ হয় অতিরিক্ত ধূমপান থেকেও৷

রাত জাগা, কাজের চাপ, বিশ্রামের অভাব— সবে মিলে টেনশন বাড়ে, বাড়ে হৃদস্পন্দন, রক্তচাপ৷ সেই চাপ এসে পড়ে কিডনিতে৷ টেনশনের সঙ্গে নেশা, ব্যথার ওষুধ, জাঙ্কফুড ও শুয়ে–বসে থাকার ঘনিষ্ঠ যোগ আছে৷ সবের মিলিত ফলে কিডনি খারাপ হতে পারে যখন–তখন৷

বিপদঘণ্টা

কোনও কষ্ট নেই, ইউরিয়া–ক্রিয়েটিনিন স্বাভাবিক৷ আনন্দে আছেন৷ হঠাৎ সামান্য বেচালে সে সামনে এল এমন ভাবে, যে ডায়ালিসিস ছাড়া গতি রইল না৷ অর্থাৎ সব ঠিক আছে মানেই আপনি সুস্থ, এমন নাও হতে পারে৷ কাজেই অনিয়ম করবেন না৷ ডায়াবেটিস–হাইপ্রেশার  বশে রাখুন৷ পা–মুখ ফুললে, অরুচি বা রক্তাল্পতা হলে, গা–হাত–পায়ে ব্যথা হলে ডাক্তার দেখান৷ ইউরিন কমে গেলে বা লাল ইউরিন হলে দ্রুত কিডনি বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন৷

 

সূত্র: আনন্দবাজারপত্রিকা

Print Friendly
User Rating: 0.0 (0 votes)
Sending