মেসি জ্বলে উঠলে কী দশা হয়, ফের দেখল ফুটবল বিশ্ব

বিডিমেট্রোনিউজ ডেস্ক ॥ লিওনেল মেসি জ্বলে উঠলে প্রতিপক্ষের কী দশা হয় তা আবারো দেখলো ফুটবল বিশ্ব। ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের দল লিঁওর জালে রীতিমত গোল উৎসব করলেন আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা। জোড়া গোলের পাশাপাশি আর্জেন্টাইন সুপারস্টার দুই গোল করালেন সতীর্থদের দিয়ে। বিশাল জয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে উঠে গেল বার্সেলোনা।

বুধবার ন্যু ক্যাম্পের ম্যাচে সফরকারী দলকে ৫-১ গোলে হারায় বার্সেলোনা। পুরো ম্যাচে দুর্দান্ত খেলা মেসি জেরার্ড পিকে ও ওউসমান দেম্বেলের গোলে রাখেন অবদান। অন্য গোলটি ফিলিপ কুতিনহোর। প্রথম লেগের ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়।

ঘরের মাঠে এ নিয়ে টানা ৩০ ম্যাচ (জয় ২৭, ড্র ৩) অপরাজিত রইল বার্সেলোনা। ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় যা নতুন রেকর্ড।

ম্যাচের শুরু থেকেই সফরকারীদের রক্ষণে চাপ বাড়াতে থাকে স্বাগতিকরা। চতুর্থ মিনিটে লিঁও গোলরক্ষককে প্রথম পরীক্ষায় ফেলেন মেসি। ডি বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া আর্জেন্টাইন তারকার বাম পায়ের জোরালো শট ডান দিকে ঝাঁপিয়ে রুখে দেন অ্যান্থনি লোপেজ।

১৬তম মিনিটে প্রতিপক্ষের ডি বক্সে ফাউলের শিকার হন লুইস সুয়ারেজ। স্পট কিকে পানেনকা শট নিয়ে দলকে এগিয়ে নেন মেসি।
মুসা ডেম্বেলে ও মেম্ফিস ডিপাইয়ের বোঝাপড়ায় ২০তম মিনিটে প্রথম সুযোগ পায় লিঁও। ডেম্বেলের নেয়া শট বার্সা ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে লক্ষ্যভ্রষ্ঠ হয়। এই গোল দিয়ে বার্সার হয়ে টানা ১১ মৌসুম সব প্রতিযোগিতা মিল কমপক্ষে ৩৫টি করে গোল করলেন ৩১ বছর বয়সী।

৩১তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ফিলিপ কুতিনহো। তবে গোলের কৃতিত্ব বলতে গেলে পুরোটাই সুয়ারেজের। বাঁ প্রান্তে ফাঁকায় উরুগুয়ান তারকার বাড়ানো বল কুতিনহো জালে পাঠান মাত্র।

অধিকাংশ সময় বলের দখল রেখে প্রথমার্ধের বাকি সময়েও আক্রমণ অব্যহত রাখে কাতালান দলটি। এসময় তারা লক্ষ্যে মোট ছয়বার শট নেয়।

বিরতির পরও শুরু থেকেই আক্রমণ অব্যাহত রাখে স্বাগতিকরা। তৃতীয় মিনিটে চিপ শটে গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে বল জালের দিকে পাঠিয়ে দেন মেসি। দৌঁড়ে এসে গোললাইনের কাছ থেকে বল বিপদমুক্ত করেন লিঁও ডিফেন্ডার।

৫৮তম মিনিটে বার্সার ডি বক্সে জটলার মধ্যে বল পেয়ে লুকা তুজা ব্যবধান কমান। মূল্যবান অ্যাওয়ে গোল পেয়ে উজ্জীবিত ফুটবল খেলতে থাকে লিঁও। বার্সার খেলায় এসময় এলোমেলো ভাব চলে আসে।

৭০তম মিনিটে কুতিনহোর বদলি নামেন ওউসমান দেম্বেলে। গতি ফেরে বার্সার খেলায়। প্রতিপক্ষ ডি বক্সে ওঠে মেসি ঝড়। যে ঝড়ে শেষ ১৩ মিনিটে আরও তিন গোল খেয়ে বিদায় নেয় লিঁও।

৭৭তম মিনিটে মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে অনেকটা এগিয়ে প্রতিপক্ষ রক্ষণে ঝড় তুলে ডান পায়ের শটে ব্যবধান বাড়ান মেসি। চলতি প্রতিযোগিতায় এটি তার অষ্টম গোল। সমান গোল নিয়ে এতদিন সর্বোচ্চ গোলদাতার আসনে ছিলেন বায়ার্ন মিউনিখের রবার্ট লেভান্দোভস্কি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এটি তার ১০৮তম গোল।

তিন মিনিট পর আবারো দৃশ্যপটে আসেন দলীয় অধিনায়ক। লিঁও ডিফেন্স তছনছ করে বাম প্রান্তে বল বাড়ান পাঁচবারের বর্ষসেরা। দৌড়ে এসে বল ফাঁকা পোস্টে ঠেলে ব্যবধান ৪-১ করেন পিকে। বার্সা সেন্ট্রাল ডিফেন্ডারের মৌসুমের সপ্তম গোল এটি।

৮৬তম মিনিটেও প্রায় একই দৃশ্যের চিত্রায়ন। এবারও মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে অনেকটা এগিয়ে বাম প্রান্তে দেম্বেলেকে বাড়ান মেসি। ডান পায়ের জোরালো শটে গোলরক্ষকের দুই পায়ের মাঝ দিয়ে বল জালে আশ্রয় নেয়।

একই সময়ে অনুষ্ঠিত আরেক ম্যাচে স্বাগতিক বায়ার্ন মিউনিখকে বিদায় করে শেষ আটে জায়গা করে নিয়েছে গতবারের রানার্স আপ লিভারপুল। সাদিও মানের জোড়া গোলে নিকো কোভাচের দলকে ৩-১ গোলে হারায় ইয়ুর্গুন ক্লপের দল। দু’দলের প্রথম লেগের ম্যাচ গোলশূন্য ড্র হয়।

প্রতিযোগিতার শেষ আটে জায়গা করে নিল প্রিমিয়ার লিগের চারটি দল। কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা অন্য দলগুলো হলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি, টটেনহাম হটস্পার, জুভেন্টাস, আয়াক্স ও পোর্তো।

আগামী শুক্রবারের ড্রয়ে শেষ আটে দলগুলো প্রতিপক্ষ নির্ধারণ হবে।

Print Friendly
User Rating: 0.0 (0 votes)
Sending