আমি আর কতদিন দেশ চালাব ?

বিডিমেট্রোনিউজ ডেস্ক ॥ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে একমাত্র আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই মহামারির মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। দেশের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে সরকার সহায়তা করেছে। ক্ষমতায় আওয়ামী লীগের সরকার না থাকলে অন্য যে কোনো শক্তি থাকলে মানুষকে সহায়তা না করে শুধু ফায়দা লুটার উপায় খুঁজত। ভবিষ্যতে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে রাষ্ট্র পরিচালনায় পরবর্তী প্রজন্মের জন্য দিকনির্দেশনা তৈরির প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বুধবার গণভবনে দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম প্রেসিডিয়ামের সভায় সূচনা বক্তৃতায় শেখ হাসিনা আরো বলেন, ‘রাজনৈতিক দল হিসেবে একমাত্র আওয়ামী লীগেরই ইকোনমিক পলিসি আছে। সেটাকে মাথায় রেখেই কিন্তু আমরা কাজ করে যাচ্ছি। জাতির পিতার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ দেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছে। যেহেতু আমরা ক্ষমতায় আছি, তাই পরবর্তী প্রজন্ম শুধু বর্তমানেই নয়, বরং ভবিষ্যতেও কীভাবে দেশ পরিচালনা করবে এবং দেশকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে, তার উপায় বের করার দায়িত্বও আমাদেরই নিতে হবে। আর সে লক্ষ্যে আমাদের এখন থেকেই প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে।’

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বর্তমানে তার বয়স ৭৪ বছর উল্লেখ করে সবাইকে মনে করিয়ে দেন যে, ‘আমি আর কতদিন দেশ চালাব? আমার তো ৭৪ বছর বয়স, আর কতদিন! সেটাও মাথায় রাখতে হবে। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য দেশ পরিচালনা সম্পর্কিত একটা ফ্রেমওয়ার্ক, একটা ধারণাপত্র অথবা একটা দিকনির্দেশনা প্রস্তুত করতে হবে, যেন তারা পথ হারিয়ে না ফেলে। সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য থাকে।’

গতকাল সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বৈঠক চলে। প্রধানমন্ত্রীর সূচনা বক্তব্যের পর তার সভাপতিত্বে নেতৃবৃন্দের রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়। সূত্র জানায়, তৃণমূলের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডকে গতিশীল ও মজবুত করতে প্রেসিডিয়াম সদস্যদের প্রধান করে টিমওয়ারি সাংগঠনিক সফরে নামার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ লক্ষ্যে আট বিভাগের জন্য আটটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই সাংগঠনিক সফরের মাধ্যমে দীর্ঘদিন সম্মেলন না হওয়া মহানগর-জেলা-উপজেলাসহ সব স্তরের সম্মেলনের মাধ্যমে দলকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলবে দলটি। সম্মেলন হওয়া যেসব মহানগর-জেলা-উপজেলা ও সহযোগী সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি সেখানে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি এবং কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির তালিকা সম্পূর্ণ করা এবং ত্যাগী ও দুঃসময়ের নেতাদের মূল্যায়ন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর, দক্ষিণ এবং সহযোগী সংগঠনগুলোর জমা দেওয়া পূর্ণাঙ্গ কমিটিগুলো দ্রুত ঘোষণা করার জন্য দলের সাধারণ সম্পাদককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের শিগিগরই সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে তা ঘোষণা করবেন।

প্রসঙ্গত, আওয়ামী লীগের ৭৮টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে সম্মেলন হয়েছে ৩১টি। মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পরও ৪৭টি জেলায় সম্মেলন হয়নি। সম্মেলন হওয়া ১৭টি সাংগঠনিক জেলা নির্ধারিত সময়সীমা গত ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রে জমা দিতে পারেনি। তাদের আগামী সাত দিনের মধ্যে কমিটি জমা দিতে বলা হয়েছে।

Print Friendly
User Rating: 5.0 (1 votes)
Sending