হিরো আলমের প্রার্থিতা বাতিল, ৪ অভিযোগ

বাংলাদেশ কংগ্রেসের দলীয় প্রার্থী হওয়ার পরও চার অভিযোগে আলোচিত আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

রোববার (৩ ডিসেম্বর)  ‍দুপুরে বগুড়ার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম তার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন।

হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিলের বিষয়ে রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম বলেন, আশরাফুল হোসেন রাজনৈতিক দলের প্রার্থী হয়েও মনোনয়নপত্রে নিজেকে স্বতন্ত্র দাবি করেছেন। সেই ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে মোট ভোটারের এক শতাংশ সমর্থন ফরমও তিনি জমা দেননি৷

তিনি আরও বলেন, মনোনয়নপত্রের হলফনামায় আশরাফুল হোসেন সম্পদের বিবরণী জমা দেননি৷ এছাড়াও তিনি মনোনয়নের হলফনামাতে স্বাক্ষরই করেননি। এসব কারণে আশরাফুল হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম আরও বলেন, মনোনয়ন পত্র বাতিলের আদেশ উঠিয়ে আশরাফুল হোসেন আগামী ৫ থেকে ৯ ডিসেম্বরে মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনে আবেদন করতে পারবেন।

আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম বলেন, মানুষ মাত্রই ভুল। আমারও ভুল হয়েছে৷ দীর্ঘদিন দেশে ছিলাম না। দুইজন উকিল মনোনয়ন পূরণে ভুলগুলো করেছেন৷ সেই দায় আমারই। হিরো আলমের মনোনয়ন বাতিল নতুন কিছু নয়। আমি আপিল করবো প্রয়োজনে আবারও হাইকোর্ট এ যাবো। মানুষের ভালোবাসা নিয়ে নির্বাচনের মাঠে থাকবই।

এর আগে ১ ফেব্রুয়ারি বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) ও বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছিল। পরে নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফেরত না পেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন।

পরে হাইকোর্টের আদেশে তিনি নির্বাচনে ফিরে আসেন। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে বগুড়া-৪ আসনে একতারা প্রতীকে ৮৩৪ ভোট কম পেয়ে আওয়ামী লীগ–সমর্থিত জাসদের প্রার্থী এ কে এম রেজাউল করিমের কাছে হারেন তিনি।

Print Friendly

Related Posts